1. shahinit.mail@gmail.com : My Bangla Tv : My Bangla Tv
  2. mybanglatv2021@gmail.com : মাই বাংলা টিভি : মাই বাংলা টিভি
৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | সকাল ৮:৪৩

সুনামগঞ্জে ভয়াবহ বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে ৪-৫ বছর লাগবে- জেলা প্রশাসক

মাই বাংলা টিভি
  • প্রকাশের সময় বুধবার, আগস্ট ৩, ২০২২,
  • 261 পাঠক

স্বরণকালের ভয়াবহ বন্যায় সুনামগঞ্জের ১২ উপজেলায় বন্যার পানি কমে যাওয়ার সাথে সাথে বৃদ্ধি পাচ্ছে নানান খাতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ। বন্যার করাল গ্রাসে সর্বশান্ত হয়ে পড়েছে হাওরাঞ্চলের মানুষ। এই ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে অন্তত ৪-৫ বছর হার ভাঙ্গা পরিশ্রম করতে হবে বানবাসী মানুষের। ঘর হারা, ফসল হারা, গৃহস্থালী আসবাবপত্র, গোলার ধান চাল হারিয়ে নি:স্ব অবস্থায় দিনাতিপাত করছেন জেলার ২০ লাখ মানুষ।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় ক্ষতিগ্রস্থদের সাহায্য সহযোগিতা করলেও তা চাহিদার তুলনায় খুবই নগন্য। রাস্তাঘাট, কৃষি, মৎস্য সম্পদ, ঘরবাড়ী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, দোকান পাঠ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ সর্বক্ষেত্রেই ক্ষতির ক্ষত চিহ্ন বয়ে বেড়াচ্ছে বানবাসী মানুষ। বন্যার আগাম প্রস্তুতি না থাকায় ক্ষতির পরিমাণ বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও টানা বর্ষনে দু দুবার বন্যার কবলে পড়েছে হাওরাঞ্চলের ২০ লাখ মানুষ। দ্বিতীয় দফা বন্যায় জেলার বেশীরভাগ ঘরের নীচতলা ছিল পানির নীচে। ফলে বিদ্যুৎ ও নেটওর্য়াক বন্ধ ছিল টানা চারদিন। অন্ধকারেই ছিল সুনামগঞ্জ জেলার প্রায় সবকটি উপজেলা, ইউনিয়ন, গ্রাম। সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ায় মানুষের দুর্ভোগ চরম আকার ধারন করেছিল। বিদ্যুতের পাওয়ার ষ্টেশনগুলোও ছিল পানির নীচে। সুনামগঞ্জ জেলা শহরসহ প্রতিটি উপজেলা সদরে নৌকা দিয়ে পাড়াপাড় হতে হয়েছে বানবাসী মানুষ।

বহু আশ্রয় কেন্দ্রে উঠে জীবন বাচালেও বাচাাঁতে পারেনি তাদের তিলে তিলে গড়ে উঠা সম্পদ। রাস্তাঘাট, বাসা-বাড়ি, ব্যবসা- প্রতিষ্ঠান, সরকারী -বেসকারী ভবন, ফ্লোর ৪ থেকে ৫ ফুট পানি নীচে।এত কম সময়, এমন ভয়ানক পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে, প্রশাসন সহ কাহার ও চিন্তা -চেতনায় মধ্যে ছিলো না।

বধবার (২৯ জুলাই) জেলার কয়েকট উচু ও নিম্ন এলাকায় সড়ক ঘুরে দেখা যায় পানি নামছে ক্ষয়-ক্ষতির বিধ্বস্তের চিত্র স্পষ্ট হচ্ছে, ভয়াবহ বন্যায় ভেংগে গেছে রাস্তা, কালভাট, ব্রিজ এপ্রোচ প্রটেকশন দেওয়াল, সরকারী -বেসরকারী স্থাপনা জেলা প্রায় ১০ টি উপজলা বিভিন্ন সড়কে ছোট-বড় গর্তে বেহাল দশা দুর্ভোগের যেনো শেষ নেই।

এতে প্রতিনিয়ত ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে জেলার হাজার হাজার যাত্রীও পথ চারীদের।অনেক সড়ক ভেঙে খালের মত হয়ে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে জেলার কয়েক লক্ষাধিক মানুষের। শুধু তাই নয় অনেক সড়কে পায়ে হেঁটে চলাচলই ভীষণ কষ্টকর হচ্ছে।

সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম প্রাং জানান, সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে ৩৫৬ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে ১৮৪ কিলোমিটার সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অন্তত ৩০০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।
এলজিইডির সুনামগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মাহবুব আলম জানান, বন্যায় গ্রামীন সড়কের নজির বিহীন ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে এতে ৪৫৭১ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে প্রায় ২ হাজার কিলোমিটার সড়ক ক্ষতি গ্রস্ত হয়েছে। প্রাণী সম্পদ বিভাগ জানায় তথ্যমতে জেলার ১২ উপজেলায় ৭২ লাখ ৬৭ হাজার ৩২৫ টি গবাদি পশুর মধ্যে ভয়বহ বন্যায় ৩ লাখ ৮৭ হাজার ৫২৮টি গবাদি পশু মারা গেছে|মৎস্য সম্পদ অধিদফতরের তথ্য মতে ১২ উপজেলায় ১৭ হাজার মৎস্য খামারি এবং ২৫ হাজার পুুকুরে উৎপাদিত ৩০ হাজার মেট্রিক টন বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ও ১০ কোটি টাকার পোনা মাছ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো: জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, ভয়বাহ বন্যার কবলে সুনামগঞ্জের রাস্তাঘাট,ব্রিজ কালর্ভাট, ঘরবাড়ী, কৃষি জমি, বোরো ফসল, আমন ধান, মৎস্য সম্পদ ও পশু সম্পদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এই ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে অন্তত ৪-৫ বছর সময় লাগবে। বন্যার্ত মানুষের ক্ষতি পুষিয়ে উঠাতে বর্তমান সরকার কাজ করছে। ক্ষুদ্র ঋণের কিস্তি বন্ধ করা হয়েছে। কৃষি ঋণ বৃদ্ধির জন্য সরকারের উচ্চ মহলকে জানানো হয়েছে।

 

লাইক ও শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন-
এই পাতার আরও খবর

এই অন লাইন নিউজ পোর্টাল মাই বাংলা টিভির ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি | Copyright© My Bangla Tv | Developed By

Theme Customized BY WooHostBD